23/10/2019 , ঢাকা

শোভন-রাব্বানী বাদ, ছাত্রলীগের নতুন নেতা জয়-লেখক


প্রকাশিত: 23/10/2019 18:26:59| আপডেট:

স্টার মেইল, ঢাকা: ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতির পদ থেকে রেজওয়ানুল হক শোভন ও সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে গোলাম রাব্বানীকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। শনিবার রাতে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। সভা শেষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।

ওবায়দুল কাদের জানান, শোভন-রাব্বানীকে পদত্যাগ করতে বলা হয়েছে।

ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটির এক নম্বর সহসভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়কে। আর ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কেন্দ্রীয় কমিটির এক নম্বর সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে।

শনিবার সন্ধ্যা ৭টায় গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনার নেত্বত্বে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে গত ৭ সেপ্টেম্বর রাতে গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের যৌথ সভায় বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে আলোচনা হয়। আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতাদের নানা অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে শোভন ও রাব্বানীর কর্মকাণ্ডে বিরক্তি প্রকাশ করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি শোভন-রাব্বানীকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার কথাও বলেন। সেই রাতে শোভন-রাব্বানী প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করার সুযোগ চাইলেও পারেননি।

এর পর পরই শোভন ও রাব্বানীর বিরুদ্ধে অভিযোগের ডানাপালা মেলতে থাকে। পরে শোভন ও রাব্বানী দুদিন গণবভনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েও ফিরে আসেন। গণভবনে তাঁদের প্রবেশের স্থায়ী পাস বাতিল করা হয়। এর পরই আলোচনায় আসে ছাত্রলীগের শীর্ষ দুই নেতার বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ।

অভিযোগগুলোর মধ্যে রয়েছে- ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে চাঁদা দাবি, কুষ্টিয়ার ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদদের পদ পেতে অর্থনৈতিক লেনদেনের অডিও ফাঁস, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মেলনে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালকে বেলা ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত অপেক্ষমান রাখা, শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিকে ছাত্রলীগের অনুষ্ঠানে পৌঁছানোর পর সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক অনুষ্ঠানে যাওয়া, জ্যেষ্ঠ নেতা তোফায়েল আহমেদকে বসিয়ে রাখা, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ও ইডেন কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সম্মেলনের দুই মাস পেরিয়ে যাওয়ার পরও কমিটি না দেওয়া, কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিতর্কিত বিষয় এবং বিবাহিত ও জামায়াত-বিএনপি সংশ্লিষ্টদের পদায়ন করা, ছাত্রলীগের কমিটি থেকে বাদপড়া নেতাদের সঙ্গে মধুর ক্যান্টিনে মারামারি করা, বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের নতুন ভবনে ছাত্রলীগের জন্য বরাদ্দ করা ফ্লোরের বাথরুমে মাদক পাওয়ার বিষয়গুলো উঠে আসে।

এসব বিষয়ে ব্যাখ্যা করতে সর্বশেষ গত বুধবার গোলাম রাব্বানী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে চিঠি লিখেন। চিঠিটি প্রধানমন্ত্রীর কাছে পৌঁছে দিতে তিনি একজন জ্যেষ্ঠ আওয়ামী লীগ নেতার হাতে সেটি দিয়েছেন। ওই চিঠিতে রাব্বানী নিজেদের ভুলের জন্য অনুতপ্ত হয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেছেন। পাশাপাশি তাদের বিষয়ে যেসব অভিযোগ এসেছে এর মধ্যে তিনটি বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীকে তিনি বিস্তারিত লিখেছেন।

চিঠিতে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উন্নয়ন কাজ থেকে টাকা চাওয়ার অভিযোগ ও গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের বিষয়ে তাঁর বক্তব্য তুলে ধরেন। ২০ জুলাই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) সম্মেলনে দেরি করে উপস্থিত হওয়ার বিষয়টিও উল্লেখ করেছেন। রাব্বানী দাবি করেন, তাঁরা বারবার পরিকল্পিত ষড়যন্ত্রের শিকার হচ্ছেন।

অভিযোগ ওঠার পর শোভন-রাব্বানী আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ নেতা ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের ইঙ্গিত করে এবং তাদের দোষারোপ করে গণমাধ্যমে ঢালাওভাবে বক্তব্য দেন। তারা বলেন, কেন্দ্রীয় কিছু নেতা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত এবং ছাত্রলীগের সাবেক কিছু নেতা সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রিত।

শোভন-রাব্বানীর দেওয়া এসব বক্তব্যে সাবেক ছাত্রলীগ নেতাদের অনেকে ক্ষুব্ধ হন। আর এসব বিষয় আজ কার্যনির্বাহী বৈঠকে উপস্থাপন করেন দলের জ্যেষ্ঠ নেতারা।

এর আগে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে মাদকের বিষয়ে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন বলেন, ‘একটা সাধারণ মানুষও বুঝে যে কারো যদি নেশা করতে ইচ্ছা করে, অনেক জায়গা আছে, পার্টি অফিসে কেন নেশা করবে? আমরা যখন যাই আমাদের সাথে নেতাকর্মীর বেষ্টনী দেওয়া থাকে, আমরা কি একাকি থাকতে পারি? আমাদের চারপাশে অনেক লোক থাকে। আর মদের যে বিষয়টা আসছে, মদ খেতে তো একটা পরিবেশ লাগে ভাই। মদ খেয়ে কেউ কোনো দিন সুস্থ থাকতে পারে? মাতলামি করবেই। পার্টি অফিস কি এ রকম জায়গা? নতুন পার্টি অফিসে একমাত্র আমরাই শুধু জায়গা পেয়েছি, আর কোনো সংগঠন কিন্তু পায়নি। যুবলীগ, এমন কি আওয়ামী লীগের কোনো লোক কিন্তু ওই খানে বসে নাই। বসছে শুধু ছাত্রলীগই। এ বিষয়টা নিয়ে অন্যান্যা যে অঙ্গ সংগঠনগুলো আছে সেগুলোতে একটু …ছাত্রলীগকে দিল আমাদেরকে দিল না। আরেকটি বিষয় হলো পার্টি অফিস যখন কারো আন্ডারে না থাকে, বন্ধ থাকে। তখন কিন্তু ঢাকার শহরে এ রকম একটা জায়গায় এমন একটা বিল্ডিংয়ে অনেক কিছু ঘটে আমরা শুনেছি। পার্টি অফিসের ভেতরে গুলিস্তানের যারা ব্যবসায়ী আছে, তারা বিভিন্ন রকম কর্মকাণ্ড করে আর কি, আড্ডা দেয়। এ বিষয়গুলো নিয়ে আমাদের যেন পার্টি অফিসটা না দেওয়া হয়, বন্ধ করে দেওয়া হয় এ জন্য অনেকে গেইম খেলছে।’

শোভন আরো বলেন, ‘আমাদের একটা বিশাল অংশ আছে, তারা চায় না আমরা সফল হই, সব সময় আমাদের বিতর্কিত করতে চেষ্টায় আছে সেটা বর্তমান মিডিয়া দেখলেই বুঝতে পারবেন। মিডিয়াতে ছাত্রলীগ ছাড়া কোনো কথা নাই। এমনটা হওয়ার কথা ছিল না।’

২০১৮ সালের ১১ ও ১২ মে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সম্মেলন হয়। এরপর ৩১ জুলাই আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সম্মতিতে রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে সভাপতি ও গোলাম রাব্বানীকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

আবরার হত্যায় ছাত্রলীগ নেতা সকালের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

রিমান্ডে থাকা ইফতি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিতে রাজি হয়েছেন জানিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে ঢাকার হাকিম আদালতে নিয়ে যায় পুলিশ।

মধুর চেয়ার-টেবিল ছাত্রলীগের ‘দখলে’, ছাত্রদল বসল মাটিতে

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মধুর ক্যান্টিন ছাত্রলীগ দখল করে রাখায় ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা বাধ্য হয়ে মাটিতে বসেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নম্বর কম দেয়ায় শিক্ষকদের হুমকি দিলেন ছাত্রলীগ নেতা

এক শিক্ষার্থীকে নম্বর কম দেয়ায় শিক্ষকদের হুমকি দিলেন ছাত্রলীগ নেতা

মন্তব্য লিখুন...

Top