1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. mahir1309@gmail.com : star mail24 : star mail24
  3. sayeed.fx@gmail.com : sayeed : Md Sayeed
  4. newsstarmail@gmail.com : Star Mail : Star Mail




রিমান্ডে মন্ত্রী,এমপি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তাদের নাম পাপিয়ার মুখে

ষ্টার মেইল রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২০

বহিষ্কৃত নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীমা নূর পাপিয়া কাণ্ডে তোলপাড় সারাদেশ। বেরিয়ে আসছে অনেক রথী-মহারথীর নাম। ১৫ দিনের রিমান্ডের দ্বিতীয় দিনে বেশ কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে পাপিয়া।

তদন্তসংশ্লিষ্টদের পাপিয়া জানিয়েছে, ক্ষমতাসীন দলের অন্তত ২ ডজন প্রভাবশালী নেতা-নেত্রীর প্রত্যক্ষ সহায়তায় পেয়েছে তিনি। ওইসব নেতা-নেত্রীকে নিয়মিত ‘মোটা অঙ্কের’ অর্থও দিতেন। যার বিনিময়ে নরসিংদী মহিলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদও ভাগিয়ে নেন। ওই নেতাদের মধ্যে কয়েকজন মন্ত্রী ও এমপি রয়েছেন। কয়েকজন সাবেক এমপিও তাকে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিতেন। এসব নেতার ব্যাপারে সরকারের হাইকমান্ডকে অবহিত করেছে তদন্তকারী সংস্থা।

তারা আরও জানিয়েছেন, রাজনীতির গুলশানের এক অভিজাত হোটেলে মাঝেমধ্যে মদের আসর বসাতেন পাপিয়া। ওই আসরে রাজনৈক নেতা, ব্যবসায়ী, আমলা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কতিপয় কর্মকর্তা উপস্থিত থাকতেন। তারা তরুণীদের নিয়ে আনন্দ-ফুর্তি করে গভীর রাতে চলে যেতেন। আবার কেউ কেউ হোটেলেই রাতযাপন করতেন।

বিশেষ করে পাপিয়ার মোবাইল ফোনে থাকা ভিডিওগুলো দেখে হতবাক হয়েছেন পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা। ওইসব ভিডিওতে প্রভাবশালী নেতা, ব্যবসায়ী, আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কতিপয় কর্মকর্তা ও অন্যান্য সংস্থার কর্মকর্তাদের ‘অনৈতিক দৃশ্য’ আছে। ওইসব ভিডিওগুলো দিয়ে লোকজনকে ব্ল্যাকমেইল করে ‘মোটা অঙ্কের’ অর্থ কামিয়েছেন পাপিয়া।

এসব করতে গিয়ে পাপিয়া অনেক তরুণীর সর্বনাশ করেছেন। দেশি তরুণী ছাড়াও ক্লায়েন্টের চাহিদা মেটাতে রাশিয়ান মডেল-তরুণীদেরকে ব্যবহার করা হত। এছাড়া ব্যবাসায়ীদের জোর করে আটকে রেখে মুক্তিপণ আদায়ই করতেন পাপিয়া। তদবিরের নামেও তারা অনেক লোকের কাছ থেকে টাকা নিয়ে আত্মসাৎ করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদে এসব বিষয় তারা স্বীকারও করেছেন।

এদিকে বিমানবন্দর থানার ওসি বিএম ফরমান আলী গণমাধ্যমকে বলেন, রিমান্ডের দ্বিতীয় দিনে তদন্ত কর্মকর্তাদের নানা তথ্য দিয়েছেন পাপিয়া। আমরা যেসব তথ্য পাচ্ছি তাতে অবাক হচ্ছি। যাচাই করা ছাড়া এ বিষয়ে কিছু বলা যাবে না।

উল্লেখ্য, গত ২২ ফেব্রুয়ারি ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর দিয়ে দেশত্যাগের সময় পাপিয়াসহ ৪ জনকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব।

গ্রেপ্তাকৃত অন্যরা হলেন, পাপিয়ার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরী ওরফে মতি সুমন (৩৮), সাব্বির খন্দকার (২৯) ও শেখ তায়্যিবা (২২)। এরপর তাদেরকে নিয়ে ফার্মগেট ও নরসিংদীর বাসায় অভিযান চালানো হয়।

র‌্যাব অভিযান চালিয়ে ১টি বিদেশি পিস্তল, ২টি পিস্তলের ম্যাগাজিন, ২০টি পিস্তলের গুলি, ৫ বোতল দামি বিদেশি মদ, ৫৮ লাখ ৪১ হাজার টাকা, ৫টি পাসপোর্ট, ৩টি চেকবই, বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক মুদ্রা, বিভিন্ন ব্যাংকের ১০টি ভিসা ও এটিএম কার্ড উদ্ধার করে।




এই বিভাগের আরো সংবাদ