1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. mahir1309@gmail.com : star mail24 : star mail24
  3. sayeed.fx@gmail.com : sayeed : Md Sayeed
  4. newsstarmail@gmail.com : Star Mail : Star Mail




রাঙামাটিতে হামে আক্রান্ত ১০০, পাঁচ শিশুর মৃত্যু

ষ্টার মেইল রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২০ মার্চ, ২০২০

রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলায় গত এক সপ্তাহে হামে আক্রান্ত হয়ে অন্তত পাঁচ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডা. বিপাশ খীসা জানান, সেখানে তিন গ্রামে এখনো হামে আক্রান্ত প্রায় একশ শিশু রয়েছে।

গত ১৪দিনে সেখানে দেখা দেয়া হাম রোগে আক্রান্ত হয়ে ৫ শিশুর মৃত্যু হয়েছে এবং আরো অন্তত শতাধিক শিশু এই রোগে আক্রান্ত হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য জৌপৈই থাং ত্রিপুরা। নিহত শিশুরা হলো, সাগরিকা ত্রিপুরা (১১), সুজন কুমার (৯) কহেন ত্রিপুরা (১০), বিধান ত্রিপুরা (১২) রেজিনা ত্রিপুরা (২), নিক্সন ত্রিপুরা (৩)। তিনি জানান, অরুন পাড়া, লাংকাটান পাড়া ও হাইচ্যাপাড়া নামক এই তিনটি এলাকায় সর্বমোট ১০৭ শিশু হামরোগে আক্রান্ত হয়ে আছে। এদিকে নিহতের সংখ্যা নিয়ে উপজেলা প্রশাসন ও জেলার স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বিভ্রান্তিকর তথ্য পাওয়া গেছে।

ডা. বিপাশ বলেন, রাঙামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের শিয়ালদহে হঠাৎ হামের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এতে গত এক সপ্তাহে হামে আক্রান্ত এই পাঁচ শিশু মারা যায়। আমরা জরুরি মেডিকেল টিম সেখানে পাঠিয়েছি। আজ শুক্রবার (২০ মার্চ) বিজিবির সহযোগিতায় হেলিকপ্টারে করে বিশেষ আরেকটি মেডিকেল টিম সেখানে যাবে বলে জানান তিনি।

সাজেক ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নেলসন চাকমা নয়ন জানান, সাজেক ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সীমান্তবর্তী তিনটি গ্রাম অরুনপাড়া, নিউথাং পাড়া ও হাইচপাড়ায় গত কয়েকদিনে হামের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। এতে মূলত শিশুরাই আক্রান্ত হচ্ছে এবং ইতোমধ্যে পাঁচটি শিশু মারা গেছে।

বাঘাইছড়ি উপজেলার নির্বাহী অফিসার আহসান হাবিব জিতু বলেন, ‘বিষয়টি স্বাস্থ্য বিভাগকে জানানোর সাথে সাথেই তারা পদক্ষেপ নিয়েছে। তবে গ্রামগুলো খুব দূরে এবং দীর্ঘ পায়ে হাঁটা পথে হওয়ায় সঠিক সময়ে সঠিক চিকিৎসা সেবা পৌঁছানো কঠিন হচ্ছে।’

২০১৫ সালের মে মাসে পানিবাহিত রোগে আক্রান্ত হয় ওই এলাকায় সাতজনের মৃত্যু হয়। এছাড়া আক্রান্ত আরো ৩০ জন জরুরি চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে ওঠেন। ৬০৭ বর্গকিলোমিটার আয়তনের সাজেক ইউনিয়নে লোকসংখ্যা প্রায় ৫২ হাজার। সীমান্তবর্তী দুর্গম এলাকা বলে সরকারি জরুরি চিকিৎসা সেবা সেখানে নিয়মিত পৌঁছায় না।




এই বিভাগের আরো সংবাদ