1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. mahir1309@gmail.com : star mail24 : star mail24
  3. sayeed.fx@gmail.com : sayeed : Md Sayeed
  4. newsstarmail@gmail.com : Star Mail : Star Mail
পরকীয়ায় বিচ্ছেদ, সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণা ও হয়রানির অভিযোগ | Starmail24
শিরোনাম :
কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটকে স্ত্রীকে গণধর্ষণ, ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা কোভিড-১৯ মোকাবেলায় স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ জেএসসি ও সমমানের পরীক্ষার মূল্যায়ন হবে যে পদ্ধতিতে মূল্যায়ন ছাড়া নবম শ্রেণিতে অটো প্রমোশন হবে না প্রবাসীদের জন্য ছাত্র অধিকার পরিষদের সাত দফা দাবি নুরুর বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের পর ঢাবির সেই ছাত্রীর আরেক মামলা বড় শাস্তি পেলেন পিএসজির আর্জেন্টাইন উইঙ্গার অ্যাঙ্গেল ডি মারিয়া বিএনপি গোপন বৈঠক করুক না কেন সব খবরই সরকারের কাছে আছে : কাদের সৌদি বাতিল হওয়া সব রুটের ফ্লাইট আগামী ১ অক্টোবর চালু মসজিদে বিস্ফোরণের ঘটনায় হতাহত ৩৫ পরিবারকে ১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা অনুদান প্রধানমন্ত্রীর




পরকীয়ায় বিচ্ছেদ, সাবেক স্ত্রীর বিরুদ্ধে প্রতারণা ও হয়রানির অভিযোগ

স্টার মেইল, ঢাকা
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ২৩ মার্চ, ২০২০

পাবনার পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম শিমুলের ভাগ্নি তানজিলা হক উর্মির বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ করেছেন তার স্বামী শেখ হাবিবুর রহমান। শনিবার (২১ মার্চ) ঢাকা রিপোর্টার ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলননে তিনি এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্য বলা হয়, ২০১০ সালে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসের মধ্যে স্বামীর বাসা থেকে ২৭ লাখ উর্মি তার মামা শিমুলের ডাচ্-বাংলা ব্যাংক একাউন্টে জমা রাখেন। ২০১১ সালে ধানমন্ডিতে ফ্ল্যাট ক্রয় করার নামে করে অর্ধ কোটি টাকা আত্মসাত করেছে। এর সঙ্গে পাবনার পুলিশ সুপার সরাসরি জড়িত। তার প্রশ্রয়ে ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত শেখ হাবিবুর রহমান।

২০০৪ সালে সৌদি আরবে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। ২০০৭ সালে দেশে ফিরে হাবিবুর রহমান পাবনার পুলিশ সুপারের ভাগ্নি তানজিল হক উর্মিকে বিয়ে করেন। এ সময় ১৭০ ভরি স্বর্ণের গহনা নেওয়া হয়। বিয়ের একমাস পরই হাবিব বিদেশে চলে যান। এরপর স্ত্রী উর্মির সঙ্গে হাবিবুরের পরিবারের সদস্যদের দ্বন্দ্ব লাগে। ২০০৮ সালে সৌদি আরব স্বামীর কাছে পাড়ি জমায় উর্মি। সেখানে দিয়ে বেপরোয়া ও উৎশৃঙ্খলা আচরণ করেন। কিছুদিন পর স্বামী হাবিবুর রহমান উর্মিকে দেশে পাঠিয়ে দেন।

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য বলা হয়, আত্মসাতকৃত টাকা ফিরত দেওয়া নাম করে শাহাজালাল আন্তজাতিক বিমানবন্দরে পাসপোর্ট আটকে দেন। ব্যাপক টাকার বিনিময়ে পাসপোর্ট ফেরত দেওয়া হয়।

২০১২ সালে হাবিবুর রহমানকে নানাভাবে ভয় ভীতি ও হুমকি ধামকি দেওয়া হয়। তিন সন্তানের জননী হন উর্মি। এরপরেও নানাভাবে নির্যাতন করে স্বামী হাবিবুর রহমানকে। এ নিয়ে সামাজিকভাবে গ্রাম্য আদালতে বিচার করা হয়। এর মধ্যে পরকীয়ায় জড়িয়ে পড়েন উর্মি। যা বাসার সিসি ক্যামেরা ফুটেজে ধরা পড়ে। এরপর উর্মি ক্যামেরাগুলো ভেঙ্গে ফেলেন। ২০১৯ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে উর্মিকে তালাক দেন হাবিব। এর কিছুদিন পরেই পাবনার পুলিশ সুপার গোপালগঞ্জের পুলিশ পাঠিয়ে হাবিবের ব্যবহারিত প্রাইভেটকার (ঢাকা মেট্রো-গ-২৯-৩২০৪) থানায় নিয়ে যায়। এই সব কিছু আত্মসাত করেন স্ত্রী উর্মি। এমকি ইমাদ পরিবহন (প্রা.) লিমিটেডের বিভিন্ন রুটে বিভিন্ন সময়ে এস.পি রফিকুল ইসলাম শিমুল ক্ষমতার অপব্যবহার করে ট্রাফিক পুলিশ সার্জেন্ট ব্যবহার করে হয়রানি করছেন।

সন্তানদের লালন-পালনের জন্য ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ হিসাব নং-৫৪১৬ নাম্বারে মাসে ৬০ হাজার টাকা প্রদান করেন হাবিব। ২০২০ সালের প্রথম দিকে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-৬ ঢাকা মামলা নং-২(৩)/২০ তানজিলা হক উর্মি বাদী হয়ে স্বামী শেখ হাবিবুর রহমানকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। এভাবে নানা মিথ্যা মামলা জালে ফেলছে স্বামী হাবিবকে।




এই বিভাগের আরো সংবাদ