1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. mahir1309@gmail.com : star mail24 : star mail24
  3. sayeed.fx@gmail.com : sayeed : Md Sayeed
  4. newsstarmail@gmail.com : Star Mail : Star Mail
চট্টগ্রামে অধিগ্রহণ বর্হিভূত ভবন উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন | Starmail24
শিরোনাম :
বুঝে শুনে পথ চলতে চাচ্ছি: রিয়া বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হচ্ছে দুর্গোৎসব সেনাপ্রধানের নামে ভুয়া অ্যাকাউন্ট, ছড়ানো হচ্ছে বিভ্রান্তিকর তথ্য সিনেমার অনুদান নিয়ে অনিয়ম, গ্রেপ্তার টোকন ঠাকুর শাশুড়ির শতকোটি টাকা আত্মসাত, স্ত্রীসহ আওয়ামী লীগ নেতা কারাগারে পীর হাবিবের বাসায় বর্বরোচিত হামলায় তীব্র নিন্দা তোফায়েল আহমেদের অনৈতিক সাংবাদিকতা থেকে বিরত থাকুন: সাংবাদিকদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন প্রধানমন্ত্রী সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের তৃতীয় নামাজে জানাজা সম্পন্ন মানুষিকতা পরিশুদ্ধ করতে পারলে, মনুষ্যত্বের দাবি নিয়ে রাস্তায় দাঁড়াতে হবে না




চট্টগ্রামে অধিগ্রহণ বর্হিভূত ভবন উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন

স্টার মেইল, চট্টগ্রাম
  • প্রকাশের সময় : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০

চট্টগ্রামের মুরাদপুর এলাকায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে অধিগ্রহণ বর্হিভূত ভবন উচ্ছেদের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার (১৭ অক্টোবর) সকালে স্থানীয় ভবন মালিক ও ব্যবসায়ীদের আয়োজনে মুরাদপুর বহদ্দার সড়কে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

এসময় মুরাদপুর এলাকার ব্যবসায়ীরা বলেন উচ্চ আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও নিয়ম বর্হিভুতভাবে চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ তাদের ব্যক্তি মালিকানাধীন ভবন ভেঙ্গে গুড়িয়ে দিচ্ছে। কোন ধরনের পূর্ব নোটিশ না দিয়েই তারা অনেকটা ক্ষমতার অপব্যবহার করে এ উচ্ছেদ চালাচ্ছে বলে অভিযোগ ভবন মালিকদের। সিডিএ’র সাবেক চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামের ওয়েল ফুডের শো’রুম রক্ষার জন্যই এ ধরনের উচ্ছেদ অভিযানের ফলে পথে বসেছে কয়েকশত ব্যবসায়ী।

স্থানীয় ভবন মালিক এড.এস এম তছলিম উদ্দিন বলেন, সিডিএ বিএস রেকর্ড মতে হুমুক দখল বর্হিভূত ৭ ফুট জায়গা তাদের দখলে নিয়ে যাচ্ছে। এ জন্য অধিগ্রহনের বাইরে থাকা ভবনগুলো ভাঙ্গা শুরু করেছে। এ বিষয়ে জলাবদ্ধতা নিরসন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক এবং জেলা প্রশাসককে লিখিত আপত্তি জানালেও তা কোনো প্রকার আমলে নিচ্ছেনা তারা।

ভবন মালিক সামশুল ইসলাম বলেন, আমরা এর আগেও ১৮৫/১৯৬২-৬৩ মুলে সিডিএকে জমি দিয়েছিলাম। সে জমি সিডিএর নামে বিএস রেকর্ডও হয়েছে। কিন্তু বর্তমানে প্রকল্প বাস্তবায়নের নামে কোনো ধরনের নোটিশ এবং পরিমাপ ছাড়াই সিডিএ আমাদের ব্যক্তিগত ভবন ভাঙ্গা শুরু করেছে। স্থানীয় ব্যবসায়ী মো. হাসান বলেন, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী কোন ভূমি অধিগ্রহণ করতে হলে ভূমি মালিককে আগে নোটি দিতে হয়। কিন্তু সিডিএ কোন ধরনের নোটিশ ছাড়াই আমাদেরকে উচ্ছেদে নেমে পড়েছে। এখন আমরা কয়েকশত ব্যবসায়ী পথে বসেছি।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, সিডিএ এবং জেলা প্রশাসকের এলএ শাখার যোগ সাজসে সিডিএ’র সাবেক চেয়ারম্যান আবদুচ ছালামের ওয়েল ফুডের শো’রুম রক্ষার জন্য তারা দক্ষিণ পাশ থেকে ভূমি না নিয়ে উত্তর পাশে এসে উচ্ছেদ করছে।

ব্যবসায়ী হাজী ওসমান গনি বলেন, আমরাও উন্নয়নের পক্ষে কিন্তু সিডিএ এখন উন্নয়নের নামে গায়ের জোরে ক্ষমতার অপব্যবহার করে অন্যকে সুবিধা দিতে আমাদের উপর এ ধরনের জুলুম চালাচ্ছে। তিনি বলেন, এ ব্যাপারে বাস্তবসম্মত পদক্ষে নেয়ার জন্য প্রকল্প পরিচালকের নিকট লিখিত আবেদন দিলেও তিনি তা আমলে নেননি।

ক্ষতিগ্রস্ত ভবন মালিক ও ব্যবসায়ীরা এ ব্যাপারে প্রশাসনের সহায়তা কামনা করেন। এসময় ভবন মালিকদের পক্ষে এড.এস এম তছলিম উদ্দিন, যুবলীগ নেতা মো. ইদ্রিস, কে এম আলী আকবর, মো. ইয়াছিন, মো. সামশুল ইসলাম, হাজী ওসমান গনি, জাহাঙ্গীর আলম, মো. মুসা, মো. হাসান, এনামুল হক, নেজাম উদ্দিনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।




এই বিভাগের আরো সংবাদ