9/12/2019 , ঢাকা

গ্রেফতার এবং তার স্বচ্ছতা


প্রকাশিত: 9/12/2019 13:25:01| আপডেট:

তাহেরা বেগম জলি: আমরাও হয়েছিলাম কারাবন্দি। ঝিনেদা মায়ের বাসা থেকে প্রথম গ্রেফতার হই। আমাকে সেদিন পুলিশ বাহিনী মাঝরাতেই গ্রেফতার করতে পারতো। না সেদিন তারা তা করেনি। আমি যেন পালিয়ে যেতে না পারি, তার জন্য আমাকে গ্রেফতারের দুইঘন্টা আগে থেকেই বাড়ির চারপাশে বসিয়েছিলো সতর্ক পাহারা। তারা ছিলো দিনের আলোর অপেক্ষায়।

আমাকে গ্রেফতারে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন ঝিনেদা মহকুমার এসডিপিও জনাব আমানুল্লাহ্ সাহেব। ঝিনেদা থানার মধ্যে বসে তাঁর সঙ্গে আমার কথা বলার সুযোগ হয়েছিলো। আমি কৌতুহল বশত জানতে চেয়েছিলাম, আমাকে তো সকাল হওয়ার আগেই এ্যারেস্ট করতে পারতেন। বাড়ি ঘিরে রেখে বসে ছিলেন কেন? তিনি দিয়েছিলেন একটা অসাধারণ উত্তর।

“সম্ভব হলে সব সময়ই নিয়ম স্বচছতার মধ্য দিয়ে গ্রেফতার করা। মেয়েদের ক্ষেত্রে তো আরো সতর্ক হওয়া উচিৎ।”


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

আজ ঝিনাইদহ হানাদার মুক্ত দিবস

৬ ডিসেম্বর পাক হানাদার ও এদেশে তাদের দোসরদের হটিয়ে ঝিনাইদহকে শত্রুমুক্ত করে

ঝিনাইদহ সীমান্ত দিয়ে ভারত থেকে অনুপ্রবেশ বেড়েছে যে কারণে

ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী এলাকা দিয়ে ভারত থেকে অবৈধভাবে নারী, পুরুষ ও শিশুদের প্রবেশ যেন থামছেই না। মহেশপুরের জলুলী, পলিয়ানপুর, খোসালপুর সীমান্তবর্তী

ঝিনাইদহে সীমান্তে ফের ৯ প্রবেশকারী আটক

অবৈধভাবে সীমান্ত অতিক্রম করার দায়ে বাংলাদেশ পাসপোর্ট অধ্যাদেশ ১৯৭৩ এর ১১ (১) (গ) ধারায় মহেশপুর থানায় সোপর্দ করে মামলা করা হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন...

Top