1. jashimsarkar@gmail.com : admin :
  2. mahir1309@gmail.com : star mail24 : star mail24
  3. sayeed.fx@gmail.com : sayeed : Md Sayeed
  4. newsstarmail@gmail.com : Star Mail : Star Mail
ইতিহাসের রেকর্ড বদলে দেয়া কে এই কমলা? | Starmail24
শিরোনাম :
এমএলএম কোম্পানির সংবাদ প্রকাশ করায় সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন ঝিনাইদহে গাঁজার গাছসহ ছাত্রলীগ নেতা আটক মালয়েশিয়ায় প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার চাচী ও সাবেক ডেপুটি স্পিকার স্মরণে দোয়া মাহফিল বিশ্বসেরা গবেষকের তালিকায় বাংলাদেশি সাঈদুর রৌমারীতে নিজস্ব অর্থায়নে ২০০ হাত লম্বা বাঁশের সাঁকো মেরামত ফ্রান্সের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক অবরোধ আরোপের দাবি ঝিনাইদহের ভাষা সৈনিক জাহিদ হোসেন মুসা আর নেই মালয়েশিয়া আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতির মায়ের মৃত্যুতে দোয়া মাহফিল ভার্চুয়াল মিট-আপে মালয়েশিয়ায় ৬টি কোম্পানির উদ্বোধন মালয়েশিয়ায় শুরু হচ্ছে বৈধকরণ প্রক্রিয়া, পাসপোর্ট দ্রুত পেতে বাংলাদেশ সরকারের হস্তক্ষেপ কামনা




ইতিহাসের রেকর্ড বদলে দেয়া কে এই কমলা?

ষ্টার মেইল রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ৮ নভেম্বর, ২০২০

ইতিহাসের রেকর্ড ভেঙে নতুন অনেক ইতিহাস সৃষ্টি হয়েছে এবারের মার্কিন নির্বাচন। সর্বোচ্চ ভোটপ্রদান কিংবা আগাম ভোটের রেকর্ড। মার্কিন নির্বাচন ঘিরে উদ্বেগ আর অনিশ্চয়তা এখনো কাটেনি। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে কোনো কৃষ্ণাঙ্গ, কোনো দক্ষিণ এশীয়, এমনকি কোনো নারী অতীতে কখনো ভাইস প্রেসিডেন্ট হতে পারেননি। সেই ইতিহাসের দেয়াল ভাঙলেন জ্যামাইকান বাবা আর ভারতীয় মায়ের সন্তান কমলা হ্যারিস।

ভারতীয় ঐতিহ্যের সঙ্গে মিল রেখে সৌভাগ্য, সৌন্দর্য ও শক্তির দেবী লক্ষ্মীর প্রতীক আর সংস্কৃত শব্দ ‘কমল’ বা পদ্মফুলের সমার্থক শব্দে মেয়ের নাম ‘কমলা’ রাখেন তার মা শ্যামলা গোপালান। সেই কমলা হ্যারিসই বাগ্মিতা, যুক্তি আর ক্ষুরধার বুদ্ধির জোরে ডেমোক্রেটিক পার্টি ও তাদের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের নির্বাচনী প্রচারে আনেন দারুণ গতি।

কমালা হ্যারিস নিজেই ডেমোক্র্যাটিক পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হবার চেষ্টা করেছিলেন। প্রথম দিকের বিতর্কগুলোয় ভালো করার পর তিনি সম্ভাব্য ডেমোক্র্যাট প্রার্থীদের প্রথম কাতারেও চলে এসেছিলেন।

তিনি সুপরিচিত হয়ে উঠেছিলেন বিপক্ষের প্রতি কড়া কড়া প্রশ্ন ছুঁড়ে দেবার জন্য। আমেরিকায় বর্ণবৈষম্যের ব্যাপারে ডেমোক্র্যাট প্রার্থীদের টিভি বিতর্কে জো বাইডেনকেও তিনি প্রশ্নবাণে জর্জরিত করতে ছাড়েন নি।

৫৫ বছর বয়সী ক্যালিফোর্নিয়ার এ সিনেটর শুরুতে অবশ্য বাইডেনের প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন। দুজনেই লড়েছিলেন দলীয় মনোনয়ন পেতে। ওই দৌড়ে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল কমলা হ্যারিসের; তবে এরপর অবশ্য বেশি দিন অপেক্ষাও করতে হয়নি ভারতীয়-জ্যামাইকান বংশোদ্ভূত এ নারীকে।

এ বছর অগাস্টেই তিনি পেয়ে যান প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ নারী হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের কোনও বড় দলের হয়ে ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে অংশ নেওয়ার টিকেট। দীর্ঘ কর্মজীবনে অনেকগুলো ‘প্রথমের’ জন্ম দেওয়া এ নারীই এখন যুক্তরাষ্ট্রের রাজনীতিতে গড়েছেন নতুন এক ইতিহাস।

২০১৬ সালে হোয়াইট হাউসে ট্রাম্পের প্রবেশের বছরই ক্যাপিটল হিলে হ্যারিসের সদম্ভ পদচারণার শুরু। গত চার বছরে দুইজনের মধ্যে খোঁচাখুঁচিও কম হয়নি। হ্যারিসকে একবার ‘ন্যাস্টি’বলেছিলেন ট্রাম্প। বাইডেনের সঙ্গে জোট বেঁধে ট্রাম্পকে হারিয়ে তার জবাব দিলেন হ্যারিস।

হ্যারিসের ৭ বছর বয়সে তার বাবা-মায়ের বিচ্ছেদ হয়। এরপর দুই মেয়েকে নিয়ে শ্যামলার সংগ্রামী জীবন শুরু হয় বার্কলের একটি হলুদ ডুপ্লেক্স ভবনের উপরের তলায়। কমালা ভারতীয় হিন্দু ঐতিহ্যের সাথে যুক্ত হয়েই বড় হন, মায়ের সাথে ভারতে বেড়াতেও গিয়েছেন তিনি।

তবে কমালা হ্যারিস বলেন, তার মা ওকল্যান্ডের কৃষ্ণাঙ্গ সংস্কৃতিকে গ্রহণ করেছিলেন এবং তার মধ্যেই তার দুই মেয়েকে বেড়ে উঠতে দিয়েছেন। কমালা হ্যারিস তার আত্মজীবনী ‘দ্য ট্রুথস উই হোল্ড’-এ লিখেছেন, “আমার মা খুব ভালো করেই বুঝেছিলেন যে তিনি দুটি কৃষ্ণাঙ্গ কন্যাসন্তানকে বড় করছেন। তিনি জানতেন, যে দেশকে তিনি স্বদেশ হিসেবে বেছে নিয়েছেন সেখানে মায়া এবং আমাকে কৃষ্ণাঙ্গ মেয়ে হিসেবেই দেখা হবে – আর তাই আমরা যেন আত্মবিশ্বাসী ও গর্বিত কৃষ্ণাঙ্গ নারী হিসেবে বেড়ে উঠি তা তিনি দৃঢ়ভাবে নিশ্চিত কতে চেয়েছিলেন।”

মিজ গোপালন কিছুকাল কানাডার ম্যাকগিল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়িয়েছিলেন – সেকারণে কমালা ও মায়া পাঁচ বছর মন্ট্রিয়েলেও ছিলেন, এবং সেখানকার স্কুলে পড়েছেন। কমালা হ্যারিস যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়ার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়েছেন, যা যুক্তরাষ্ট্রে ঐতিহাসিকভাবেই কৃষ্ণাঙ্গদের প্রধান কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর অন্যতম ছিল।

তিনি বলেন, তিনি সবসময়ই তার পরিচয় নিয়ে দ্বিধাহীন ছিলেন এবং নিজেকে ‘একজন আমেরিকান’ হিসেবে বর্ণনা করেন। কমালা হ্যারিস আইনের ডিগ্রি নেন হেস্টিংসের ইউনিভার্সিটি অব ক্যালিফোর্নিয়া থেকে, এবং কাজ শুরু করেন আইনজীবী হিসেবে। পরে তিনি প্রথম নারী ও কৃষ্ণাঙ্গ হিসেবে ক্যালিফোর্নিয়ার এ্যাটর্নি জেনারেল হন এবং দু’বছর দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি ২০১৪ সালে বিয়ে করেন আইনজীবী ডগলাস এমহফকে – এবং এখন তিনি দুটি সন্তানের বিমাতা। এরই মধ্যে ডেমোক্র্যাটিক পার্টির একজন উদীয়মান তারকা হিসেবে কমালা হ্যারিসের সুনাম ছড়িয়ে পড়তে থাকে। ২০১৭ সালে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার জুনিয়র সেনেটর নির্বাচিত হন।

২০১৯ সালের জানুয়ারিতে আত্মজীবনীমূলক বই ‘দ্য ট্রুথস উই হোল্ড: অ্যান আমেরিকান জার্নি’ প্রকাশিত হওয়ার কিছু দিন পরই হ্যারিস ২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্রেট দলের প্রার্থী হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

মনোনয়ন লড়াইয়ের শুরুর দিকে হ্যারিসকে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন, ভারমন্টের সেনেটর বার্নি স্যান্ডার্স এবং ম্যাসাচুসেটসের সেনেটর এলিজাবেথ ওয়ারেনের শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী মনে করা হয়েছিল।

এক বিতর্কে বাইডেনকে অতীতের নেওয়া বেশ কিছু সিদ্ধান্ত এবং সম্প্রদায়গত বিভিন্ন ইস্যুতে নাজেহাল করেও ছেড়েছিলেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই নারী। মনোনয়ন লড়াই থেকে ছিটকে পড়ার পর চলতি বছরের মার্চে হ্যারিস বাইডেনকে সমর্থন দিয়ে বলেন, ‘তাকে (বাইডেন) যুক্তরাষ্ট্রের পরবর্তী প্রেসিডেন্ট করতে সাধ্যের সবটাই করব।’

পরবর্তীতে গত ১১ অগাস্ট কমলা হ্যারিসকে নির্বাচনী জুটি হিসাবে বেছে নেন বাইডেন৷ আর এখন অপেক্ষা ইতিহাসের সাক্ষী হওয়ার।




এই বিভাগের আরো সংবাদ