10/12/2019 , ঢাকা

‘আমার ক্যামেরা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়, আমাকেও মারধর করে’


প্রকাশিত: 10/12/2019 20:52:55| আপডেট:

বগুড়ায় রোববার ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গিয়ে ছাত্রলীগের হামলায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরসহ আরও অন্তত পাঁচজন আহত হয়েছেন। এছাড়াও, নুরের ওপর আক্রমণের ভিডিও ধারণ করতে যাওয়ায় বেসরকারি যমুনা টেলিভিশনের ভিডিওগ্রাফার শাহনেওয়াজ শাওনকেও মারধর করেন ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা। বিষয়টি নিয়ে সোমবার শাহনেওয়াজ শাওনের সঙ্গে কথা হয়।

শাহনেওয়াজ শাওন বলেন, বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের বগুড়া জেলা শাখার পক্ষ থেকে শহরের সাতমাথা মোড়ের কাছে উডবার্ন সরকারি গ্রন্থাগার মিলনায়তনে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করা হয়েছে বলে রোববার আমাকে ফোন করে জানানো হয়। আয়োজকরা জানান যে, ওই ইফতার মাহফিলে ডাকসুর ভিপি নুরুল হক নুর আসবেন। সে অনুযায়ী আমরা এখানে আয়োজন শুরু করেছি কিন্তু পুলিশের পক্ষ থেকে আমাদের বাধা দেওয়া হচ্ছে। পুলিশ বলছে যে এখানে ইফতার মাহফিল করতে দেওয়া হবে না। কারণ আমাদের লিখিতভাবে অনুমতি দেওয়া হয়নি।

এই খবর পাওয়ার পর আমি বিকেলে অনুষ্ঠানস্থলে গিয়ে হাজির হই। সেখানে বেশ কয়েকটি জাতীয় দৈনিক ও টেলিভিশনের কর্মীরা ছিলেন। গিয়ে দেখি, পুলিশের কাছ থেকে বাধা পাওয়ায় আয়োজকরা ভেন্যু পরিবর্তনের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ভিপি নুরের জন্য অপেক্ষা করছেন। এর কিছুক্ষণ পর, নুর এসে যখন আয়োজকদের সঙ্গে কুশলাদি বিনিময় করছিলেন, ঠিক তখনই স্থানীয় ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা এসে অতর্কিতে তাদের ওপর হামলা চালায়, যোগ করেন তিনি।

শাওনের ভাষ্য, ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা নুর ও তার সঙ্গীদের এমন বেদম প্রহার করেছে যে, তা বলার কোনো ভাষা নেই। এর মধ্যেই আমি ছবি তুলতে গেলে তারা আমার ওপরও হামলে পড়ে এবং আমার ক্যামেরা ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায় ও আমাকে মারধর করে। যদিও তারা ক্যামেরাটি ছিনিয়ে নিতে সক্ষম হয়নি এবং ততক্ষণে এক ব্যক্তি সহায়তায় আমি কোনোভাবে ওই স্থান থেকে বের হয়ে আসি।

হামলাকারীদের চেনেন কী-না? জানতে চাইলে যমুনা টেলিভিশনের এই ভিডিওগ্রাফার বলেন, হামলাকারীদের বেশিরভাগই স্থানীয় ছাত্রলীগের পদধারী নেতা। সরকারি আজিজুল হক কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুর রউফ, বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক মুকুল ইসলাম, শাহ সুলতান কলেজ শাখাসহ জেলা শাখা ছাত্রলীগের প্রায় ২০ থেকে ৩০ জন নেতা-কর্মী হামলায় অংশ নেয়।

কেউ কিছু বুঝে ওঠার আগেই ওরা (ছাত্রলীগ) অতর্কিতে এসে হামলা চালিয়েছে। নুরও বুঝতে পারেনি যে এখানে এসে তাকে এভাবে মার খেতে হবে, বলেন শাহনেওয়াজ।

তবে, বগুড়া জেলা শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক দাবি করেছেন, ‘হামলা নয়, ভিপি নুরের সঙ্গে হালকা ধাক্কাধাক্কি হয়েছে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাহনেওয়াজ শাওন বলেন, না, ছাত্রলীগের এমন দাবি সত্যি নয়। তাছাড়া, পুলিশও ছাত্রলীগের মতো করে কথা বলছে। পুলিশ আগে থেকেই জানতো যে, সেখানে ইফতার মাহফিল করতে দেওয়া হবে না। নুর আসলে ছাত্রলীগ হামলা করতে পারে এমন ধারণা ছিলো পুলিশের। এতসব জানা সত্ত্বেও পুলিশ তবে কেনো সেখানে কোনো মোবাইল টিম পাঠায়নি?

এদিকে, ক্যামেরা পার্সনের ওপর ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে বগুড়া টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটি এবং বগুড়া টেলিভিশন ক্যামেরা পার্সন এসোসিয়েশন মানববন্ধন করেছে। সোমবার দুপুরে এই মানববন্ধনে সাংবাদিক নেতারা হামলাকারিদের ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবি জানান। নির্ধারিত সময় দোষীরা গ্রেফতার না হলে বুধবার অবস্থান কর্মসূচিরও ডাক দিয়েছেন সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ।

শহরের সাতমাথা চত্ত্বরে আয়োজিত এই কর্মসূচিতে সভাপতিত্ব করেন টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি আবদুর রহিম বগরা। ইউনিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেরুল সুজনের সঞ্চালনায় বক্তব্য দেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের যুগ্ম মহাসচিব জিএম সজল, বগুড়া প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল আলম নয়ন, বগুড়া সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আমজাদ হোসেন মিন্টু, সাধারণ সম্পাদক জেএম রউফ, টেলিভিশন রিপোর্টার্স ইউনিটির সাধারণ সম্পাদক চপল সাহা, নির্বাহী সদস্য ফরহাদ শাহী, বগুড়া ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মমিনুর রশিদ সাইন ও ক্যামেরাপার্সন অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শফিকুল ইসলাম শফিক।

বক্তারা পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় একজন গণমাধ্যমকর্মীর ওপর এমন হামলায় জড়িতেদর গ্রেফতারে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দেন। নির্ধারিত সময়ে মধ্যে প্রশাসন জড়িতদের গ্রেফতারে ব্যর্থ হলে আগামী বুধবার বেলা সাড়ে ১১টায় সাতমাথা চত্ত্বরে গণমাধ্যমকর্মীদের অবস্থান কর্মসূচি পালন করা হবে বলেও জানান বক্তারা। গণমাধ্যমকর্মীদের এই কর্মসূচিতে সংহতি জানিয়ে মানববন্ধন ও সমাবেশ যোগ দেয় সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট ও সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের বগুড়া জেলা কমিটি।


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

রোহিঙ্গাদের চোখ এখন নেদারল্যান্ডসের হেগের দিকে

কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩২টি শিবিরে অবস্থিত চায়ের দোকান, হাট-বাজার এবং মসজিদ-মাদ্রাসায় হেগের আন্তর্জাতিক আদালতে (আইসিজে) দায়ের করা মামলাই এখন আলোচনার বিষয়। মিয়ানমার থেকে পালিয়ে কক্সবাজারে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের চোখ এখন নেদারল্যান্ডসের হেগের দিকে। মিয়ানমারের বিরুদ্ধে গাম্বিয়ার দায়ের করা গণহত্যা মামলায় কী হবে, কী হতে যাচ্ছে- তা নিয়ে তীব্র আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে রোহিঙ্গাদের মধ্যে। মিয়ানমারের সেনা সদস্যসহ […]

‘রাস্তা ছাড়েন ভাই, ডিআইজি স্যার বসে আছেন’

পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় পুলিশের গাড়ির ধাক্কায় আহত হয়েছেন এক সাংবাদিক।

মালয়েশিয়ায় ড্রাইভিংয়ের অপরাধে ৫৬ বাংলাদেশিকে আটক

মালয়েশিয়ায় লাইসেন্স এবং বৈধ কাগজপত্র ছাড়াই ড্রাইভিংয়ের অপরাধে ৫৬ বাংলাদেশিকে আটক করেছে দেশটির ট্রাফিক পুলিশ। সোমবার থেকে শুরু হওয়া তিন দিনের এই অভিযান চালায় ট্রাফিক পুলিশ কুয়ালালামপুর। অবৈধ অভিবাসীদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদারের পর থেকে ইমিগ্রেশন বাহিনীর পাশাপাশি ট্রাফিক পুলিশও অভিযান পরিচালনা করছে। তারই ধারাবাহিকতায় রাজধানীতে বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ ২৩৪ জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। আটকদের […]

মন্তব্য লিখুন...

Top