20/09/2019 , ঢাকা

ভারপ্রাপ্ত সভাপতি লাঞ্ছিতের ঘটনার তদন্ত চেয়ে চিঠি তারেককে


প্রকাশিত: 20/09/2019 18:19:10| আপডেট:

স্টার মেইল, ঢাকা: ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপির সিনিয়র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মুন্সী বজলুল বাছিত আঞ্জুকে লাঞ্ছিতের সুষ্ঠু তদন্ত ও বিচার দাবি করেছেন কমিটিবিরোধী বিদ্রোহী নেতারাও। একই সঙ্গে বিদ্রোহী নেতারা উত্তরের সব থানা ও ওয়ার্ড কমিটি স্থগিত করে পুনরায় গঠনেরও দাবি জানান। গতকাল বৃহস্পতিবার দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের কাছে লিখিত এক আবেদনে তারা এ দাবি জানান। এই আবেদনে স্বাক্ষর করেন মহানগর উত্তর বিএনপির সহসভাপতি একেএম মোয়াজ্জেম হোসেন, আলতাবউদ্দিন মোল্লা, ফেরদৌসি আহমেদ মিষ্টি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম পারভেজ, সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল রহমানসহ উত্তরের কমিটির ২৮ জন গুরুত্বপূর্ণ নেতা।

এর আগে গত বুধবার ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনপিও বিবৃতি দিয়ে মুন্সী বজলুল বাছিত আঞ্জুকে লাঞ্ছিত করার নিন্দা জানিয়ে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানান।

গত ১ সেপ্টেম্বর বিএনপির ৪১তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের কবরে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে মোহাম্মদপুর থানার বিক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের রোষানলে পড়ে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত হন মুন্সি বজলুল বাছিত আঞ্জু।

জানা গেছে, এই হামলার সঙ্গে জড়িতরা সবাই যুবদল-ছাত্রদলের রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হলেও উত্তরের একাংশের নেতারা কমিটিবিরোধী কয়েক নেতাকে দায়ী করেন। ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের কাছে লিখিত আবেদনে বিদ্রোহী নেতারা বলেন, মুন্সি বজলুল বাসিত আঞ্জুর ওপর হামলার পর থেকে বিএনপির উত্তরের সাধারণ সম্পাদক আহসানউল্লাহ হাসান ও যুগ্ম সম্পাদক এজিএম শামসুল ইসলাম ঘটনার জন্য মহানগর উত্তর বিএনপির সহসভাপতি একেএম মোয়াজ্জেম হোসেন, সহসভাপতি ফেরদৌসি আহমেদ মিষ্টি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম পারভেজ এবং সাংগঠনিক সম্পাদক সোহেল রহমানকে দায়ী করে সংবাদমাধ্যমে বক্তব্য দেন।

অন্যদিকে সংগঠনের দপ্তর সম্পাদক এবিএম রাজ্জাক হামলাকারী হিসেবে ৭-৮ জনের কথা বলেন। এর মধ্যে জনৈক শুক্কর নামের একজনকে তিনি চিহ্নিত করেন।

নেতারা বলেন, প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠান অসঙ্গতি রেখে ভিন্ন সময়ে পৃথকভাবে যাওয়ার অনভিপ্রেত ঘটনাটি ঘটেছে। একমাত্র আমরাই মিছিল সহকারে দলের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে একত্রিতভাবে অন্য বছরের মতো অনুষ্ঠান সম্পন্ন করি। আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি, এখন বিভাজন বা অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের সময় নয়; নিজেদের মধ্যে প্রতিশোধ বা প্রতিহিংসারও সময় নয়; সঠিক তদন্ত ব্যতিরেকে কোনো কাদা ছোড়াছুড়ির সময় নয়। এখন সময় ঐক্যবদ্ধ থাকার।

আড়াই যুগেরও বেশি সময় ছাত্রদল করা তারেক রহমানের কাছে আবেদন করা নেতারা আরও বলেন, এখন বিএনপি করছি তাদের আওয়ামী লীগের দালাল বলা কতটুকু শোভনীয় তার বিচারের ভার পূর্ণ আস্থা সহকারে আপনার ওপর ছেড়ে দিলাম।

গত বছর ৩ জুন দলের গুরুত্বপূর্ণ এই সাংগঠনিক ইউনিটের ২৫টি থানা ও ৫৮টি ওয়ার্ড কমিটি ঘোষণা করেন ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি এমএ কাইয়ুম ও সাধারণ সম্পাদক আহসান উল্লাহ হাসান। বিতর্কিত ও অখ্যাতদের দিয়ে পকেট কমিটির অভিযোগ তুলে মহানগর উত্তরের ৬৬ নেতার মধ্যে ৩২ জন ঘোষিত কমিটির বিরুদ্ধে অবস্থান নেন। দলের হাইকমান্ড সমস্যার সমাধানে ব্যর্থ হলে পৃথক ব্যানারে দলীয় কর্মসূচি পালন করে আসছেন এসব নেতা।


  
এ সম্পর্কিত আরও খবর...

জামিন মেলেনি, বিএনপি নেত্রী রাজিয়া কারাগারে

মামলার এজাহারে তার নাম নেই। সন্দেহবশত গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তিনি একজন বয়স্ক মহিলা। তার ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপসহ নানা রোগে আক্রান্ত।

বগুড়া-৬ আসনে বিএনপির জয়

সোমবার সকাল ৯টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ শেষে বেসরকারি ফলাফল ঘোষণা করা হয়। ইভিএম হওয়ার কারণে দ্রুত ফলাফল পাওয়া গেছে।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসার দাবিতে রাজধানীতে বিক্ষোভ করেছে দলের নেতাকর্মীরা। এতে নেতৃত্ব দেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল

মন্তব্য লিখুন...

Top